মঙ্গলবার, ১৮ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং। ৪ঠা পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ। রাত ১১:৪৬








চট্টগ্রামে ‘স্ত্রী-শাশুড়ির’ হাতে জবাই হওয়া সেই প্রবাসীর মৃত্যু

সারাদেশে প্রতিনিয়ত হত্যাকান্ডের ঘটনা অহরহ ঘটছে। খুন করা যেন বর্তমান সময়ে সহজ কাজ বনে েগেছে অপন জনকে খুন খরতে বিবেক বাধা দিচ্ছে না  এমনি একটি ভয়ংকর ঘটনা ঘটেছে গত বৃহস্প্রতিবার আগে চট্রগামে ।বউ ও শাশুড়ি মিলে জামাইকে হত্যা করতে চেয়ছিল ।তবে শেষ রক্ষা হলো না ।

চট্টগ্রামের রাউজান উপজেলার গহিরায় সাবেক স্ত্রী ও শাশুড়ির হাতে জবাই হওয়া প্রবাসী যুবক ফখরুল ইসলাম (২৮) দুই দিন পর মারা গেছেন। শনিবার রাতে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে মারা যান তিনি। নিহত ফখরুল ইসলাম রাউজান পৌরসভার ২ নম্বর ওয়ার্ডের গহিরা মোবারকখিল এলাকার হালদার খান চৌধুরী বাড়ির তাজুল ইসলামের ছেলে। এ তথ্য নিশ্চিত করেন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ জহিরুল ইসলাম।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন...

তিনি বলেন, ‘গত বৃহস্পতিবার রাত ৮টার দিকে ফখরুলের সাবেক স্ত্রী উম্মে হাবিবা মায়া ও তার মা রাশেদা আকতার রাউজান পৌর এলাকার ভাড়াবাসায় ফখরুল ইসলামকে গলাকেটে হত্যার চেষ্টা চালায়। তারা ফখরুলকে মৃত ভেবে গ্যাস সিলিন্ডারে আগুন লাগিয়ে ফখরুল আত্মহত্যা করেছে বলে প্রচার চালানোর চেষ্টা করে। কিন্তু স্থানীয়রা গুরুতর জখম ফখরুলকে উদ্ধার করে চমেক হাসপাতালে ভর্তি করে। গত দুদিন চিকিৎসাধীন থাকার পর শনিবার রাতে তার মৃত্যু হয়েছে।’

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ফখরুল ইসলাম বিদেশে থাকাকালে তার স্ত্রী উম্মে হাবিবা মায়া (১৯) পরকীয়া প্রেমে জড়িয়ে পড়েন। এ ঘটনা জানাজানি হলে দুই পরিবারে বিরোধ সৃষ্টি হয়। পরে ফখরুলকে তালাক দেয় উম্মে হাবিবা মায়া।

সম্প্রতি ফখরুল দেশে ফিরে আসার পর গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় তাকে নিজেদের বাড়িতে ডেকে নিয়ে যায় হাবিবা। সেখানে খাটের ওপর ফেলে হাবিবা ও তার মা মিলে ফখরুলকে গলাকেটে জবাই করে হত্যার চেষ্টা চালায়। পরে তার মৃত্যু নিশ্চিত করতে রক্তাক্ত অবস্থায় বাসার ছাদে ফেলে রেখে বাসায় গ্যাস সিলিন্ডারে আগুন লাগিয়ে দিয়ে তারা প্রচার করতে থাকেন, ফখরুল আত্মহত্যার চেষ্টা করেছে।

আগুনের খবর পেয়ে প্রতিবেশীরা ঘরে গিয়ে দেখে ঘরের সিঁড়িতে রক্তের দাগ। তারা সেই রক্তের চিহ্ন ধরে বাড়ির ছাদে গিয়ে গলাকাটা অবস্থায় ফখরুলকে ছটপট করতে দেখে। দ্রুত প্রতিবেশীরা তাকে হাসপাতালে নিয়ে যায়। পরে খবর পেয়ে পুলিশ ওই দিন রাতেই রাশেদা আকতার ও উম্মে হাবিবা মায়াকে আটক করে।

এ ঘটনার ব্যাপারে রাউজান থানার উপ-পরিদর্শক নূরনবী বলেন, ঘটনার পর পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ফখরুলের সাবেক শাশুড়ি রাশেদা আকতারকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। এ ঘটনায় হত্যা মামলা দায়ের করা হবে।নিহত পরিবারের কেউ এখনো কোন মামলাি করেনি ।এ ঘটনায় এলাকায় আতঙ্ক বিরাজ করছে ।

Share Button

error: Content is protected !!