মালয়েশিয়া বিমানবন্দর ও যাত্রীদের সুরক্ষা জোর’দার

মালয়েশিয়া বিমানবন্দর ও এয়ারলাইন্স যাত্রীদের সুরক্ষা জোরদার করেছে কর্তৃপক্ষ……

মালয়েশিয়া বিমানবন্দর ও এয়ারলাইন্স যাত্রীদের সুরক্ষা জোরদার করেছে কর্তৃপক্ষ। আন্তর্জাতিক এয়ারপোর্ট যাত্রীদের সেবার মান বৃদ্ধি করতে সুরক্ষা স্ক্রেনিংয়ের প্রক্রিয়াটি ত্বরান্বিত করতে বিমানবন্দরে একটি নতুন ব্যবস্থা প্যাসেঞ্জার রিকাউন্সিলেশন

সিস্টেস (পিআরএস) প্রবর্তনের জন্য সহযোগী হিসেবে মালয়েশিয়া বিমানবন্দরের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে ‘বিমানবন্দর হোল্ডিংস বিডি’।

এমএএইচবি এক বিবৃতিতে জানায়, পিআরএস ইতোমধ্যে মূল বিমানবন্দর টাচ পয়েন্টগুলিতে অত্যাধুনিক প্রযুক্তিসম্পন্ন মেশিন স্থাপন করা হয়েছে এবং মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্স প্রথম বিমান সংস্থা এটি ব্যবহার করবে। চলতি মাসেই সেবা কার্যক্রম চালু হবে। যাত্রীদের সেবার মান বৃদ্ধি ও প্রযোজনীয় সুরক্ষা নিশ্চিত বজায় এবং উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার অব্যাহত হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

শনিবার মালয়েশিয়ার সংবাদ সংস্থা বার্নামামায় দেয়া এক সাক্ষাতকারে এমএএইচবি গ্রুপের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা দাতুক মোহাম্মদ শুকরি মোহাম্মদ সাল্লেহ বলেছেন, পিআরএসের কল্যাণে আমরা আমাদের সমস্ত স্টেকহোল্ডারদের সুবিধার্থে সুরক্ষা প্রক্রিয়াটি দ্রুত জোরদার এবং সহজ হবে।

এই সিস্টেমের অনেকগুলি সুবিধার মধ্যে রয়েছে যাত্রীদের জন্য বৃহত্তর সুবিধা সম্পন্ন এবং ন্যূনতম সারি যা ভ্রমণের সময় নিরাপদ শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখতে সহায়তা করবে।

বিমানবন্দর টার্মিনাল এক এ ১০টি ইউনিট এবং টার্মিনাল দুই এ ১২টি ইউনিট স্থাপন করা হয়েছে। এই ডিজিটালাইজেশন পরিকল্পনা নতুন ব্যবস্থাপনাটি বিমানবন্দর এবং বিমান পরিবহন যাত্রী সেবা মান সুরক্ষিত থাকবে।

পিআরএস হল একটি নতুন স্বয়ংক্রিয় সুরক্ষা স্ক্রিনিং সিস্টেম যা সঠিক সময়ে মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্সের যাত্রীবাহী ডাটাবেইজ, যাত্রী ভ্রমণের সকল তথ্য স্ক্যান করতে ও ম্যাচ এবং সংরক্ষণ করতে সক্ষম। শুধুমাত্র মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্স রিয়েল টাইম ডেটা অপারেশনাল দক্ষতার দ্বারা উপকৃত হবে না সমস্ত বোডিং কল চলাকালীন যাত্রীদের ট্র্যাক করার প্রয়োজন হলে তা তাৎক্ষণিকভাবে ট্র্যাক করা সম্ভব।

যাত্রীদের অতিরিক্ত ব্যাগেজ তাৎক্ষণিকভাবে শনাক্ত করণ। শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে বিমান থেকে যাত্রী সারিবদ্ধ উঠানামাসহ বিমানের টার্ন আন্ডার গ্রাউন্ডেও এই প্রযুক্তি উন্নতি করা হয়েছে।

সম্প্রতি গ্লোবাল এয়ারপোর্ট সার্ভিস কোয়ালিটি ২০২০ সালে এক সমীক্ষায় (৫.০/৫.০) পেয়ে শীর্ষস্থান অর্জন করেছে মালয়েশিয়া আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর। বছরে ৪০ মিলিয়ন যাত্রী উঠানামা টার্মিনাল সুরক্ষা, যাত্রী সুবিধা, পরিষেবা, পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার জন্য সামগ্রিক যাত্রী সন্তুষ্টি শর্তে বিশ্বের সেরা বিমানবন্দরে তালিকায় স্থান করে নিয়েছে মালয়েশিয়া বিমানবন্দর।

মোহাম্মদ শুকরি আরও বলেন আমরা গতিশীল করতে অফার করব যাতে বিশ্বের শীর্ষ বিমানবন্দরগুলোর একটি হিসেবে আমাদের গতি বজায় থাকে। বিমান সংস্থা পিআরএসের বোর্ডে যুক্ত হয়ে সেবা ও নতুন অভিজ্ঞতা অর্জন করবে বলে আশা প্রকাশ করেন এ কর্মকর্তা।